জানা-অজানা

স্বামীর ‘জীবন বাঁচাতে’ বাসররাতে নববধূকে তান্ত্রিক ও দেবরের ধর্ষণ!

10 8950 স্বামীর ‘জীবন বাঁচাতে’ বাসররাতে নববধূকে তান্ত্রিক ও দেবরের ধর্ষণ!

স্বামীর জীবনের ‘ঝুঁকি’ দূর করতে তান্ত্রিকের কথা অনুযায়ী বিয়ের রাতেই ধর্ষণ করা হলো নববিবাহিতাকে। ভয়ঙ্কর এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের মেরঠে।

আমাদের এনড্রয়েড মোবাইল এপস। বাছাই করা সেরা ১০১ পিঠার রেসিপি। ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুণ!

ধর্ষিতা নববধূ ও তার পরিবারের লোকজনের অভিযোগের ভিত্তিতে দেবর ও তান্ত্রিকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার (শহর) মান সিংহ চৌহান। তিনি আরও বলেছেন, এফআইআর-এ স্বামী ও দেবরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের চক্রান্ত করার অভিযোগ করেছেন ওই মহিলা।

পুলিশ সূত্রে খবর, ওই মহিলা মেরঠের লিসারি গেট থানা এলাকার বাসিন্দা। এ মাসের ১৫ তারিখ হাপুর জেলার পিলাখওয়া অঞ্চলের এক কাপড়ের ব্যবসায়ীর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। ওই মহিলার অভিযোগ, বিয়ের অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পরেই তাকে মাদক মিশ্রিত পানীয় দেওয়া হয়। সেই পানীয় খেয়ে তিনি আংশিক সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়েন। এরপর তার স্বামীর বদলে এক অপরিচিত ব্যক্তিকে (তান্ত্রিক) নিয়ে ঘরে ঢোকে দেবর। তারা দু’জন মিলে তাকে ধর্ষণ করে।

পরে যখন ওই মহিলা স্বামী ও তার পরিবারের লোকজনকে এই ঘটনার কথা বলেন, তখন তারা বলে, তান্ত্রিক বলেছিল, ওই মহিলার সঙ্গে বিয়ের প্রথম রাত কাটালে স্বামীর মৃত্যু হবে। এই ঝুঁকি দূর করার জন্যই ধর্ষণ করা জরুরি ছিল। এবার তারা বাড়ির নিচে পুঁতে রাখা গুপ্তধনের সন্ধান করবে।

শ্বশুরবাড়িতে এই অত্যাচারের শিকার হওয়ার পর বাপের বাড়িতে ফিরে আসেন ওই মহিলা। তিনি বাবা-মাকে গোটা ঘটনা জানান। এক সপ্তাহ পরে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করা হয়। হাসপাতালে মুখ লুকিয়েও শেষরক্ষা হলো না। অবশেষে পুলিশের জালে ভারতের রাজস্থান রাজ্যের ধর্ষক ‘ফলাহারি বাবা’। ২১ বছরের এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের ঘটনায় পুরো ভারত এখন উত্তাল। ঠিক সে সময়ই খোঁজ মেলে রাজস্থানের এই ধর্মগুরুর। জানা যায়, নিজেরই ভক্তের কন্যাকে ধর্ষণ করেছে এই স্বঘোষিত ধর্মগুরু। আলোয়ারে বাবার আশ্রম। চাকরি পাওয়ার সেখানেই বাবার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন তরুণী। আশ্রমের জন্য অনুদান দেয়ারও কথা ছিল তার।

অভিযোগ, তাকে দীর্ঘক্ষণ বসিয়ে রাখা হয়। তারপর আলাদা করে ডেকে নিয়ে শারীরিকভাবে নিগ্রহ করা হয়। ধর্ষণও করা হয়। বাড়ি ফিরেই বাবার কুকীর্তি ফাঁস করেন ওই তরুণী। তার অভিযোগের ভিত্তিতেই পুলিশ হানা দেয় বাবার আশ্রমে। কিন্তু অসুস্থতার অছিলায় মাথা বাঁচানোর চেষ্টা করে বাবা। উচ্চ রক্তচাপের কারণে হাসপাতালে ভরতি ছিল বাবা। আলোয়ারের পুলিশ সুপার তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার নির্দেশ দেন। আর তাতেই ভণ্ডামি ধরা পড়ে। সুগার থেকে প্রেসার সবই স্বাভাবিক আছে তার। এরপরই ফলাহারি বাবাকে গ্রেপ্তার করতে দেরি করেনি পুলিশ।

সত্তর বছরের এই স্বঘোষিত ধর্মগুরুর নাম কৌশলেন্দ্র প্রপন্নাচার্য। তবে ফলহারি বাবা নামেই খ্যাতি বেশি। ফল খেয়েই জীবনধারণ বলে এরকম নাম বাবার। স্থানীয় প্রভাশালী রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গেও তার ছবি আছে। অভিযোগকারিণী তরুণীর বাবা ফলাহারি বাবার শিষ্য। তরুণীর বাড়িতেও বেশ কয়েকবার পা রেখেছে বাবা। সেই হিসেবেই প্রথম চাকরির পয়সা বাবার আশ্রমে দান করতে গিয়েছিলেন ওই তরুণী। সেখানেই তাকে ধর্ষণ করা হয়। এমনকি কাউকে জানালে ফল ভালো হবে না বলেও হুমকি দেয়া হয়। যদিও সাহস করে নীরবতা ভাঙেন ওই তরুণী। আর তাই শেষমেশ পুলিশের জালে উঠল আরো এক ধর্ষক বাবা।

ধর্ষণ মামলায় দোষী সাব্যস্ত ভারতের ‘ধর্মগুরু’ গুরমিত রাম রহিমকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির একটি বিশেষ আদালত। সাজা ঘোষণা করেন সিবিআই বিচারক জগদীপ সিং। আজ সোমবার রোহতক জেলা সংশোধনাগারে গিয়ে ওই সাজা ঘোষণা করেন বিচারক।

আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, ভারতের স্থানীয় সময় দুপুর পৌনে দুটো নাগাদ জেলে প্রবেশ করেন দু’পক্ষের আইনজীবীরা। আড়াইটা বাজার কিছু সময় আগে রোহতকে পৌঁছান বিচারপতি। বেলা আড়াইটার কিছু সময় পর থেকে শুরু হয় শুনানি। শুনানির সময় নিজ নিজ বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য দুই পক্ষকে ১০ মিনিট করে সময় দেওয়া হয়। যুক্তিতর্ক শেষ হওয়ার পর বিচারপতি সবাইকে নীরবতা পালন করতে বলেন। এরপর সাজা ঘোষণা করেন জগদীপ সিং।

ভারতের আইন অনুযায়ী, ধর্ষণের মামলায় রাম রহিমের সর্বনিম্ন ৭ বছর থেকে সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হওয়ার সুযোগ ছিল।

এদিকে, সাজা ঘোষণাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত রোহতক-সিরসায় আধা সামরিক বাহিনী মোতায়েন করা হয়। সেনাবাহিনীকেও প্রস্তুত রাখা হয়।

রাম রহিমকে দোষী সাব্যস্ত করার পর সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত ৩৬ জন প্রাণ হারিয়েছেন। ফলে সাজা ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট আশঙ্কায় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের প্রস্তুত রাখা হয়।

এছাড়া রোহতক সিরসার বিভিন্ন এলাকায় মোতায়েন করা হয় নয় হাজার আধা-সামরিক ও বিশাল পুলিশ বাহিনী। মোড়ে মোড়ে গাড়ি থামিয়ে চলে তল্লাশি। মোবাইল সার্ভিস বন্ধ রাখা হয়। এমনকি পাঞ্জাবের ১৩টি জেলায় স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখা হয়।

উল্লেখ্য, ভক্ত নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে আদালত গত ২৫ আগস্ট রাম রহিমকে দোষী সাব্যস্ত করে।

'সবধরনের ভিডিও রেসিপি দেখতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুণ!'


বিঃ দ্রঃ মজার মজার রেসিপি ও টিপস, রেগুলার আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে লাইক দিন আমাদের ফ্যান পেজ বিডি রমণী



সর্বোচ্চ পঠিত

BD Romoni YouTube Channel
To Top