অন্যান্য

বিয়ে করার জন্য দেড় বছর ধরে ময়ূরীকে খুঁজতেছিলাম: শফিক, পড়ুন বিস্তারিত

বিয়ে করার জন্য দেড় বছর ধরে ময়ূরীকে খুঁজতেছিলাম: শফিক, পড়ুন বিস্তারিত
বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের আলোচিত নায়িকা ময়ূরীর বিয়ে নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে আলোচনার ঝড় বয়ছে। ময়ূরী সম্প্রতি বিয়ে করেছেন শফিক জুয়েল নামের এক যুবককে। শফিক জুয়েল ময়ূরীর দ্বিতীয় স্বামী। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের ৪১তম আবর্তনের শিক্ষার্থী। ময়ূরীর সঙ্গে বিয়েসহ নানা বিষয় নিয়ে শফিকের সঙ্গে কথা বলেছেন মঈনুল রাকীব
কেমন আছেন?
জ্বী, ভাল।
নায়িকা ময়ূরীর সঙ্গে কিভাবে পরিচয় হলো?
আমি তার ফোন নাম্বার সংগ্রহ করে যোগাযোগ করি। তিনি গত পয়লা বৈশাখে (১৪ এপ্রিল) জাহাঙ্গীরনগর ক্যাম্পাসে এসে দেখা করেন। এরপর ফোনে কথা হতো অল্পস্বল্প। তারপর…
বিয়ে হলো কবে?
বিয়ে হয়েছে পরিচয়ের তিন-চার মাসের মাথায়। আমি ময়ূরীকে ২০১৭ সালের ২২ জুন বিয়ে করি। সেটি ২৭ রমজান ছিল। তবে বিয়ের কথা প্রকাশিত হয় জুলাই-আগস্টে। আসলে পারিবারিক ও সামাজিক প্রতিবন্ধকতায় আমরা কিছুদিন পরে তা প্রকাশ করি।
অনেক সংবাদপত্রে ময়ূরীর তৃতীয় বিয়ে বলে প্রকাশ করা হচ্ছে। এটা কি সত্য?
না না, এটা মিথ্যা কথা। আপনার ভাবীর (ময়ূরী) প্রথম স্বামী মারা যাওয়ার পরেই আমার সঙ্গে বিয়ে হয়। তবে মাঝখানে অনেকেই তাকে বিয়ে করতে চায়। তবে তাদের বিশ্বস্ত মনে না করায় লিজা (ময়ূরীর আসল নাম) সকলকে ফিরিয়ে দেন।
আপনার পরিবার সম্পর্কে বলবেন?
আমার বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলার রাজিবপুর উপজেলায়। আমার পিতার নাম ইনসাফ আলী ও মা রাফেজা স্বপ্না। আমরা চার ভাই, কোন বোন নেই।
বিয়ের ক্ষেত্রে পারিবারিক প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়েছেন?
হ্যাঁ, তাতো হয়েছিই। আমার পরিবারের সকলে বিষয়টিকে গ্রহণ করতে পারেনি। কারণ গ্রামীণ পরিবেশে এমন একটি সিদ্ধান্তকে প্রথমেই মেনে নেয়ার মত সামাজিক পরিবেশ এখনো আমাদের দেশে তৈরি হয়নি। তবে আমার বাবা আমাদের জন্য দোয়া করেছেন, তিনি নিয়মিত আমাদের সাথে কথা বলেন।
একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছেন, পরিচিতরা কিভাবে নিয়েছে বিয়ে?
বিয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগেই ভেবেছি অনেক বাধা আসবে, কথা হবে। অনেকেই বিয়ের আগে আমাকে নিরুৎসাহিত করেছে। কিন্তু সমাজে পরিবর্তনের জন্য কিছু করতে হলে আপনাকে প্রতিবন্ধকতা জয় করেই করতে হবে। অনেকেই পিছনে অনেক কথা বলেছে, তবে সামনাসামনি কিছুই বলেনি। ফেসবুকে প্রথমে আমাদের নিয়ে সমালোচনা হলেও এখন মানুষের বোধোদয় হয়েছে যে, কারো ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে এভাবে পাবলিক প্লেসে হাসিঠাট্টা করা উচিত নয়। অনেকেই আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন ভার্চুয়াল জগতে। তাদের প্রতি আমি ও আমার স্ত্রী কৃতজ্ঞ।
ময়ূরীর আগের পক্ষের মেয়ে আছে, সে এই বিয়ে ও আপনাকে গ্রহণ করেছে?
সে আমাকে খুব ভালবাসে এবং মূলত এই বিয়েতে ওর ভূমিকাই বেশি। এর আগে আরও কেউ কেউ ময়ূরীকে বিয়ে করতে চাইছে। সেখানে তিনি (ময়ূরী) পাত্তা দেননি কাউকে কারণ এঞ্জেল (ময়ূরীর মেয়ে) তাদের পছন্দ করেনি।
তরুণ হিসেবে ময়ূরীকে বিয়ে করার সাহস কখন এলো?
আমি দেড় বছর ধরে তাকে (নায়িকা ময়ূরীকে) খুঁজতেছিলাম। যখন আমি সংবাদ দেখি যে, তার প্রথম স্বামী মারা গেছেন, তখনই আমি সিদ্ধান্ত নিই তাকে বিয়ে করার। তারপর নায়িকা হ্যাপি যখন তাবলীগ শুরু করলো তখন আমার মনে হয়েছে যে, আমি একটু ময়ূরীর সঙ্গে দেখা করি। তারপর ফেসবুকে তাকে খুঁজে আমি দেখা করি এবং যেভাবে ভেবেছি আলহামদুলিল্লাহ তারপর সব সেভাবেই হয়েছে। এই হচ্ছে কথা, অনেক মিথ্যা সংবাদ ছড়িয়েছে যা সত্য নয়। মিডিয়ার প্রতি অনুরোধ…!
সংবাদমাধ্যম ও সাংবাদিকদের কিছু বলতে চান?
আমরা নিউজ হতে চাইনি। পরিবার, আত্মীয় স্বজন, পরিচিতদের অনেক রকম বাধা, সমালোচনা সহ্য করেই বিয়েটা হয়েছে । কিন্তু, নিউজটা আমাদের অজান্তে ছড়িয়ে পড়ে। নিউজগুলোর অধিকাংশ তথ্যই ছিলও মিথ্যা। সাংবাদিক ভাইদের প্রতি নিবেদন করবো যেন, আমাদের সাথে কথা বলে সংবাদ করেন। আমার ও ময়ূরীর সঙ্গে কথা বলে আমাদের বক্তব্যটি সঠিকভাবে তুলে ধরে যেন সংবাদ করা হয়। যেমন, আমি মাদরাসা শিক্ষক নই, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। ময়ূরীর দ্বিতীয় বিয়েই এটি, তৃতীয় বিয়ে নয়। অসত্য বা উড়ো খবরের উপর ভিত্তি করে দয়া করে কোন সাংবাদিক ভাই বা ইউটিউব ব্যবহারকারীরা কোন কিছু প্রকাশ করবেন না। তারা যেন ছবি ব্যবহারের ক্ষেত্রেও অনুগ্রহ করে সংবেদনশীলতার পরিচয় দেন।
ছবি ব্যবহার মানে?
ময়ূরী চলচ্চিত্র ছেড়ে দিয়েছে প্রায় একযুগ। এখন সে ব্যক্তিগত জীবনে একটি সন্তানের মা। আমার স্ত্রী। তার ভুল সময়ের ছবি দিয়ে কোন কিছু প্রকাশ করলে তাতো আমাদের আহত করতে পারে। এখন আমাদের ছবি আছে, আমার সাথে ওর বোরখা পরা ছবি আছে। সাংবাদিক ভাইরা চাইলে আমরা তা দিবো। কিন্তু এমন কোন ছবি যেন না ব্যবহার করেন যাতে একজন নারী যিনি সে সময়ের ভুল বুঝতে পেরে দূরে সরে মার্জিত জীবনযাপন করছেন, তিনি কষ্ট পান। এইটুকু বিনীত নিবেদন রইলো মিডিয়ার প্রতি।
ময়ূরীর নাম এলেই অশ্লীল চলচ্চিত্রের কথা তোলেন অনেকে। এ ব্যাপারে আপনার মতামত কী?
আমার স্ত্রীকে অশ্লীল সিনেমার নায়িকা বলা হয়। কিন্তু এর জন্য দায়ী প্রযোজক, পরিচালক, সেন্সরবোর্ড। আর তার বিপরীতে যেসব নায়ক অভিনয় করেছে, তাদেরকে অশ্লীল নায়ক বলা হয় না কেনো? তার সময়ের এমন কোনো নায়ক নাই, যার সাথে ময়ূরী কোনো সিনেমা করে নাই। সমাজের চোখ কেন একজন নারী ময়ূরীর দিকেই পড়ে বারবার!
ময়ূরী সম্পর্কে আপনাকে মূল্যায়ন করতে বললে কি বলবেন?
আমার স্ত্রী আমৃত্যু আল্লাহর পথে চলতে চায়। সে অনেক বড় এবং ভালো মনের অধিকারী। নইলে সে কেনো একজন বেকার ও হুজুরকে বিয়ে করবে! কত টাকাওয়ালা লোকজন তাকে বিয়ের জন্য চেষ্টা করেছে। কিন্তু, সে একজন সৎ ও ভালো মনের জন্য অপেক্ষায় ছিলো।
নায়িকা ময়ূরী তার ইনকাম থেকে অনেককেই দুহাত ভরে সাহায্য করেছে। আত্মীয়স্বজনদের বিদেশ পাঠানো, বিয়ে দেয়া, চিকিৎসা, পড়ালেখা করানো, চাকরি পাইয়ে দেওয়াসহ লক্ষ লক্ষ টাকা মামা, খালা, কাজিন, এলাকার লোকজনের জন্য খরচ করেছে। এফডিসি, সার্কাস এসবের সাথে জড়িত অনেক স্টাফ ময়ূরীর টাকায় উপকার পেয়েছে। মানুষ দূর থেকে তাকে যাই ভাবুক না কেনো, আমি তাকে কাছ থেকে দেখেছি, ভালবেসেছি। অনেকেই তাকে কষ্ট দিয়েছে, প্রতারণা করেছে, টাকা মেরেছে, ঢাকায় জমি মেরে দিছে, আবার জমির টাকা নিয়ে জমি দেয় নাই, উল্টাপাল্টা মিথ্যা নিউজ দিছে। ময়ূরীকে ইউজ করে অনেকেই টাকা কামাইছে। ময়ূরী তার সবকথা যদি বলতে পারতো, আর পাবলিক যদি শুনতো, তাহলে কেউ আর তাকে গালমন্দ করতো না।
আপনাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?
ইনশাআল্লাহ বাকি জীবন একসাথে যেন সুখে থাকতে পারি সে জন্যই চেষ্টা করবো। আপনারা দোয়া করবেন সবাই। আমরা আগস্ট মাসে তিন দিনের তাবলীগে গিয়েছি, এই মাসের শেষে (সেপ্টেম্বর) আবার যাবো। ২০ সেপ্টেম্বর উত্তরায় নাইজেরিয়া থেকে একজন নারী তাবলীগ জামাতে এসেছিল। আমরা সেখানেও সময় দিয়েছি। আমি স্ত্রী, এঞ্জেল ও শাশুড়ি এখন টঙ্গীতে বাস করছি। সবার কাছে দোয়া চাই।
লেখক, শিক্ষার্থী, সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

আমাদের এনড্রয়েড মোবাইল এপস। বাছাই করা সেরা ১০১ পিঠার রেসিপি। ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুণ!

'সবধরনের ভিডিও রেসিপি দেখতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুণ!'


বিঃ দ্রঃ মজার মজার রেসিপি ও টিপস, রেগুলার আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে লাইক দিন আমাদের ফ্যান পেজ বিডি রমণী



সর্বোচ্চ পঠিত

BD Romoni YouTube Channel
To Top